কন্যাদের নিরাপত্তা ছাড়া কন্যাশ্রী সফল হতে পারে নাঃ রাজ্যপাল

‘কন্যাদের নিরাপত্তা ছাড়া কখনওই কন্যাশ্রী সফল হতে পারে না’, মাটিগাড়ায় দাঁড়িয়ে এমনই মন্তব্য রাজ্যপাল সিভি আনন্দ বোসের। শিলিগুড়ির মাটিগাড়ার মৃত নাবালিকার পরিবারের সঙ্গে দেখা করে পক্ষান্তরে রাজ্য প্রশাসনকে কাঠগড়ায় তুললেন রাজ্যপাল সিভি আনন্দ বোস। প্রশ্ন তুললেন রাজ্যের আইনশৃঙ্খলা নিয়ে। রাজ্যপালের এমন এক বক্তব্যে ফের আরও এক সংঘাতের বাতাবরণ যে তৈরি হতে চলেছে রাজ্য-রাজভবনের মধ্যে তা বলাই বাহুল্য।

রবিবার দুপুরে মাটিগাড়ায় মৃতা নাবালিকার বাড়িতে যান রাজ্যপাল। তাঁর সঙ্গে ছিলেন দার্জিলিংয়ের সাংসদ রাজু বিস্তা, শিলিগুড়ির বিধায়ক শঙ্কর ঘোষ এবং বিজেপির শিলিগুড়ি সাংগঠনিক জেলার সভাপতি অরুণ মণ্ডল-সহ জেলা বিজেপির অন্যান্য কর্মী। মৃতার পরিবারের সঙ্গে প্রায় ১৫ থেকে ২০ মিনিট কথা বলেন রাজ্যপাল আনন্দ বোস। মাটিগাড়া থেকে বেরিয়ে শিলিগুড়ির স্টেট গেস্ট হাউসে সাংবাদিক বৈঠক করার সময় রাজ্যপাল সিভি আনন্দ বোস শোকপ্রকাশ করে জানান, ‘আমি বাক্‌রুদ্ধ। মৃতার পরিবারের পাশে রয়েছি।’ এরই রেশ ধরে তিনি জানান,‘কন্যাদের সুরক্ষা ছাড়া এ রাজ্যে কন্যাশ্রী কখনও সফল হতে পারে না। আর সুরক্ষাব্যবস্থা সুষ্ঠু করতে আমাদের সকলকেই এগিয়ে আসতে হবে।কন্যাদের সুরক্ষা সুনিশ্চিত করতে সবাইকে ঐক্যবদ্ধ হয়ে কাজ করতে হবে।’ একইসঙ্গে তাঁর আশ্বাস, পুলিশি তদন্ত চলছে। আশা করছেন দ্রুত অপরাধীদের শাস্তি হবে।

এখানে একটা কথা বলতেই হয়, রাজ্যে নাবালিকাদের বিয়ে রুখতে এবং নারী শিক্ষার প্রসারে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের মস্তিষ্কপ্রসূত কন্যাশ্রী প্রকল্প রাষ্ট্রপুঞ্জের সেরা প্রকল্পের সম্মান পেয়েছে। মূলত, ১৩ থেকে ১৯ বছর পর্যন্ত স্কুল এবং কলেজ পড়ুয়াদের জন্য পশ্চিমবঙ্গ সরকার এই প্রকল্প চালু করে। তাই রাজ্যপালের এই মন্তব্যে নতুন করে রাজ্যের সঙ্গে সংঘাতের আবহ তৈরি হল বলে মনে করা হচ্ছে।পাশাপাশি, উত্তরবঙ্গের আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি নিয়েও রাজ্যপাল মন্তব্য করেন।তিনি এও জানান, ‘উত্তরবঙ্গের এই জায়গা চিকেন্‌স নেক হিসাবে পরিচিত। এই জায়গার সুরক্ষা ব্যবস্থা সবার আগে সুনিশ্চিত করা দরকার।’ এরই সঙ্গে তাঁর সংযোজন, মাদক পাচার থেকে বিভিন্ন রকমের অপরাধ বাড়ছে উত্তরবঙ্গে।রাজ্যপালের বক্তব্য, আইনের শাসন এখানে নিশ্চিত করা হোক।

প্রসঙ্গত, গত সোমবার ২১ অগাস্ট বিকেলে মাটিগাড়ায় এক নাবালিকার রক্তাক্ত দেহ উদ্ধার হয়। নাবালিকার মাথা থেঁতলানো ছিল। ভয়াবহ সে দৃশ্য। নাবালিকার পরনে ছিল স্কুলের পোশাক। এই ঘটনায় তদন্তে নেমে এক যুবককে গ্রেফতার করা হয়। ওই নাবালিকাকে যৌন হেনস্থার চেষ্টা ও খুনের অভিযোগ ওঠে ওই যুবকের বিরুদ্ধে। একটি পরিত্যক্ত ঘর থেকে উদ্ধার করা হয় দেহ। এরপরই নৃশংস এই খুনের ঘটনার প্রতিবাদে পথে নামে বিজেপি। মাটিগাড়াতে বিশাল মিছিল করে তারা। মিছিলে ছিলেন বিজেপি সাংসদ রাজু বিস্তা, শিলিগুড়ির বিধায়ক শঙ্কর ঘোষ। দোষীদের কঠোর শাস্তি দাবি করে বিজেপি। শনিবার গোর্খা জনমুক্তি মোর্চা ১২ ঘণ্টার বনধ ডাকে।

অন্যদিকে এই ঘটনায় রাজ্য শিশু সুরক্ষা কমিশনও তৎপর। রবিবার কমিশনের চেয়ারপার্সন সুদেষ্ণা রায় ও অ্যাডভাইজর অনন্যা চক্রবর্তী শিলিগুড়ি যান। ওই নাবালিকার বাড়িতে যান তাঁরা। পুলিশি রিপোর্টে যেহেতু যৌন হেনস্থার উল্লেখ আছে, তাই চার্জশিটে পকসো ধারা যোগ করা হবে বলেও জানান সুদেষ্ণা রায়। একইসঙ্গে তিনি জানান,  ‘অভিযুক্তের বিচারপ্রক্রিয়া যাতে ফাস্ট ট্র্যাক কোর্টে হয় তার সুপারিশ করছি।’

 

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

2 × 3 =