কেষ্টকে মিথ্যে ফাঁসানো হয়েছে, ভার্চুয়াল মিটিংয়ে দাবি মমতার

পঞ্চায়েত ভোটে অনুব্রতহীন বীরভূম। সোমবার ভার্চুয়ালি পঞ্চায়েত ভোটের প্রচারে ‘প্রিয় কেষ্ট’র পাশে দাঁড়িয়ে বিজেপির বিরুদ্ধে সুর চড়ালেন তৃণমূলনেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। সোমবার ভার্চুয়ালি দুবরাজপুরের সভায় ভাষণ দেন তিনি৷ আর এই ভাষণ দিতে গেয়ই মুখ্যমন্ত্রী ততা তৃণমূল সুপ্রিমো জানান,  ‘কেষ্ট আমাদের ঘরের ছেলে। ওকে মিথ্যা ফাঁসানো হয়েছে।’ ভাষণে তিনি এ দাবিও করেন, ২০২৪ সালে বিজেপি উৎখাত হবে বলেও দাবি করেন। একই সঙ্গে কংগ্রেসকে বিদ্ধ করে জানান, ‘কংগ্রেস দিল্লিতে একসঙ্গে লড়াই করার জন্য আমাদের ডাকছে। আর রাজ্যে ওরা আমাদের বিরুদ্ধে লড়াই করছে।’ একইসঙ্গে মুখ্যমন্ত্রীর সংযোজন, অর্থাৎ, দিল্লিতে বিজেপির বিরুদ্ধে বিরোধীদের সঙ্গে হাত মিলিয়ে লড়াইয়ের বার্তা দিলেও বাংলায় যে সেই সমীকরণ খাটবে না, ফের তা স্পষ্ট করে দেন মমতা। এই প্রসঙ্গে তৃণমূল সুপ্রিমোর স্পষ্ট বার্তা, ‘বাংলায় কংগ্রেস-বিজেপি-সিপিএমের বিরুদ্ধে তাঁর লড়াই।’ এরই রেশ ধরে এও বলেন, ‘সিপিএম-বিজেপি-কংগ্রেস হাত মিলিয়ে বাংলায় সন্ত্রাস ছড়াচ্ছে। কংগ্রেস দিল্লিতে লড়াইয়ের জন্য হাত মেলাতে আহ্বান জানাচ্ছে। অথচ বাংলায় ওরা আমার বিরুদ্ধে লড়াইয়ে নেমেছে। দিল্লিতে এক লাড্ডু আর এখানে অন্য লাড্ডু খাবে, এটা তো হতে পারে না।’

এদিন তৃণমূল সুপ্রিমো তাঁর বক্তব্য রাখতে গিয়ে এও বলেন, ‘আজ কেষ্টর নামে বলা হচ্ছে, তার মেয়েকে পর্যন্ত আটকে রেখে দিয়েছে। যদি সে অন্যায় করে তাহলে তা কোর্টে প্রমাণ করুক। নিজেদের সুবিধার জন্য ওকে শুধু শুধু আটকে রেখে দিয়েছে, যাতে ও পঞ্চায়েতটা করতে না পারে। আর বিজেপির গদ্দারগুলো, যারা কোটি কোটি টাকা নয় ছয় করেছে, তারা বুক ফুলিয়ে ঘুরে বেড়াচ্ছে।’ এরই পাশাপাশি মহারাষ্ট্রের ঘটনাকে সামনে এনে বিজেপির বিরুদ্ধে সুর চড়িয়ে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বলেন,  ‘মহারাষ্ট্র তো দেখলেন। যারা বিজেপিতে গেল তারা কোটি কোটি টাকার দুর্নীতিতে জড়িত। যখন বিজেপিতে যাচ্ছে তখন ভাজপার ওয়াশিং মেশিনে সব সাদা হয়ে যাচ্ছে। কালো গিয়ে সাদা হয়ে যাচ্ছে। আর আমাদের পার্টি করলেই তাকে ইডি-সিবিআই দিয়ে ভয় দেখাচ্ছে। একশো দিনের কাজের টাকা এখনও দেয়নি। প্রায় ৭ হাজার কোটি টাকা আমরা পাই।’

গরুপাচার মামলায় অভিযুক্ত তৃণমূল বীরভূম জেলা সভাপতি অনুব্রত মণ্ডল এখন তিহারে জেলবন্দি। এই প্রথম বীরভূমে কোনও ভোট হচ্ছে যেখানে অনুব্রত নেই। ত্রিস্তর পঞ্চায়েত নির্বাচনের প্রচারে এদিন বীরভূম আসার কথা ছিল মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের৷ কিন্তু উত্তরবঙ্গে থেকে ফেরার পথে হেলিকপ্টার বিপর্যয়ের পায়ে ও কোমরে চোট পান তিনি৷ তাই সশরীর দুবরাজপুরের সভায় আসতে পারেননি তৃণমূলনেত্রী৷ তবে উপস্থিত ছিলেন মন্ত্রী ফিরহাদ হাকিম সহ জেলা তৃণমূল নেতৃত্ব৷ মমতার বক্তব্য মোবাইল ফোনের মাধ্যমে উপস্থিত জনতাকে শোনানো হয়। অনুব্রতহীন বীরভূমে এখন তৃণমূলের সংগঠন দেখভাল করছেন তৃণমূল সুপ্রিমোরই গড়ে দেওয়া কোর কমিটি। এছাড়া সামগ্রিক ভাবে জেলার দেখভালের দায়িত্বে রয়েছেন কলকাতার মেয়র ফিরহাদ হাকিম।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

4 × one =