মঙ্গলাহাটের অগ্নিকাণ্ডের ঘটনায়  সিআইডি তদন্তের নির্দেশ মমতার

২১শের সভা মঞ্চ থেকে বেরিয়েই শুক্রবার হাওড়া মঙ্গলা হাটের অগ্নিকাণ্ডের ঘটনাস্থলে যান মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। এরপরই এদিনের অগ্নিকাণ্ডে প্রচুর ব্যবসায়ীর ক্ষতি হওয়ায় ছোট ব্যবসায়ীদের স্বার্থে নতুন করে মার্কেট গড়ে দেওয়ার কথা জানান মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। পাশাপাশি, এই অগ্নিকাণ্ডের ঘটনায় কারও হাত আছে কিনা বা এর পেছনে কোনও ষড়যন্ত্র আছে কিনা সে ব্যাপারে তদন্তের আশ্বাস দেন মুখ্যমন্ত্রী। এদিকে শুক্রবার সকালে হাটের পরিস্থিতি খতিয়ে দেখতে গিয়ে ব্যবসায়ীদের একাংশের ক্ষোভের মুখে পড়েন রাজ্যের সমবায়মন্ত্রী অরূপ রায়। মন্ত্রী আশ্বাস দেন, ‘কোনও রকম অভিযোগ থাকলে পুলিশ তদন্ত করে বার করবে। দোষীদের গ্রেপ্তার করা হবে।’ পরে মমতা হাটে এসে ক্ষতিগ্রস্ত ব্যবসায়ীদের সঙ্গে কথা বলেন। তাঁদের বক্তব্য শুনে মুখ্যমন্ত্রী জানান, সিআইডি এই ঘটনার তদন্ত করবে। দমকলও রিপোর্ট জমা দেবে। তার ভিত্তিতে পরবর্তী পদক্ষেপ করা হবে। কারও বিরুদ্ধে আগুন লাগানোর অভিযোগ উঠে থাকলে, এফআইআর দায়ের করে পুলিশ ব্যবস্থাও নিতে বলেন মুখ্যমন্ত্রী।

মুখ্যমন্ত্রী এদিন জানান, তিনটি উপায় রয়েছে হাওড়া জেলার মঙ্গলা হাটের ব্যবসায়ীদের স্বার্থে কিছু করার জন্য। তিনি জানান, যদি জমির মালিকানা ঘেঁটে দেখা যায়, জমিটি সরকারের মালিকাধীন তাহলে সেখানে একটি নতুন মার্কেট গড়ে দেওয়া হবে। যদি, সরকারি মালিকানা না থাকে তাহলেও সেটিকে সরকারি মালিকানায় এনে মার্কেট গড়া হবে।

পাশাপাশি, তিনি এও জানান জমিটি কোনও ব্যক্তিগত মালিকানা থাকলে তাহলে বিকল্প ব্যবস্থা হিসাবে সাঁতরাগাছি বাইপাসের ধারে ব্যবসায়ীদের জন্য ব্যবস্থা করার কথা জানান তিনি। যদিও ব্যবসায়ীরা এই জায়গাতেই তাঁদের হাট চালানোর ব্যাপারে মুখ্যমন্ত্রীকে অনুরোধ করেন।

এরই পাশাপাশি এদিকে ওই এলাকায় তোলাবাজির অভিযোগ তুলেছিলেন স্থানীয় ব্যবসায়ীরা। সেই বিষয়টিও তদন্ত করে দেখা হবে বলেও আশ্বাস দেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। আগুন লাগার ঘটনায় সকাল থেকেই ক্ষোভ ফুঁসছেন ব্যবসায়ীরা। এদিন তাঁরা মন্ত্রী অরূপ রায়কে ঘিরেও বিক্ষোভ দেখান। গোটা হাটে সঠিক অগ্নি নির্বাপক ব্যবস্থা না থাকায় কারণেই এই ভয়াবহ অগ্নিকাণ্ড হয়েছে বলে অনেকেই দাবি করেন।

এদিকে অগ্নিকাণ্ডের ঘটনায় হাওড়া পুলিশ কমিশনারেট, হাওড়া জেলা শাসক এবং মন্ত্রী অরূপ রায়, বিপর্যয় মোকাবিলা দপ্তর সকলকে নিয়ে একটি কমিটি গঠনের কথাও জানান মমতা। অগ্নিকাণ্ডের ঘটনার কারণ কী, তা খতিয়ে দেখার জন্য নির্দেশ তিনি। পাশাপাশি, যে কোনও সিদ্ধান্ত গ্রহণের ক্ষেত্রে স্থানীয় ব্যবসায়ীদের সহযোগিতা করার ব্যাপারে অনুরোধ করেন মুখ্যমন্ত্রী।

প্রসঙ্গত, বৃহস্পতিবার গভীর রাতে বা শুক্রবার ভোররাতে হাওড়া জেলার মঙ্গলা হাটে ভয়াবহ আগুন লাগার ঘটনা ঘটে। পুড়ে ছাই হয়ে যায় কয়েক হাজার দোকান। কয়েক লাখ টাকার ক্ষতির মুখে পড়েন ছোট বড় ব্যবসায়ীরা। ঘটনাস্থলে দমকলের মোট ১৮টি ইঞ্জিন এসে আগুন নিয়ন্ত্রণে আনে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

1 × three =