মণিপুরের রাজ্যপালের সঙ্গে সাক্ষাৎ করল বিরোধী ইন্ডিয়া জোট

রবিবার ইম্ফলে রাজভবনে মণিপুরের রাজ্যপাল অনসুয়া উইকের সঙ্গে সাক্ষাৎ করল বিরোধীদের ইন্ডিয়া জোটের ২১ সদস্যের প্রতিনিধি দল। মণিপুরে দুই দিনের সফরে, কুকি এবং মেইতেই উভয় সম্প্রদায়ের ত্রাণ শিবিরগুলি পরিদর্শন করেন বিজেপি বিরোধী শিবিরের নেতারা। এদিন, তাঁদের সেই অভিজ্ঞতা তাঁরা রাজ্যপালকে এদিন জানান। এরই পাশাপাশি ইন্ডিয়া জোটের প্রতিনিধিরা রাজ্যপাল অনসুয়া উইকের কাছে একটি স্মারকলিপিও পেশ করেন।

মূলত, ইন্ডিয়া জোটের প্রতিনিধিরা রাজ্যপাল অনসুয়া উইকের কাছে রাজ্যে শান্তি ও সম্প্রীতি ফেরানোর জন্য সমস্ত কার্যকর ব্যবস্থা গ্রহণ করার অনুরোধ করেন।  রাজ্যপালের কাছে জমা দেওয়া স্মারকলিপিতে ইন্ডিয়া জোটের পক্ষ থেকে বলা হয়েছে, ‘গত ৮৯ দিন ধরে মণিপুরে আইনশৃঙ্খলার সম্পূর্ণ বিপর্যয় সম্পর্কে কেন্দ্রীয় সরকারকে অবহিত করার জন্য আপনাকে অনুরোধ করা হচ্ছে। রাজ্যে শান্তি ও স্বাভাবিকতা ফেরাতে মণিপুরের এই অনিশ্চিত পরিস্থিতিতে কেন্দ্রকে হস্তক্ষেপ করতে বলুন।’ স্মারকলিপিতে তাঁরা আরও জানিয়েছেন, ৩ মে থেকে শুরু হওয়া সংঘর্ষে ইতিমধ্যে ১৪০ জনের বেশি মানুষের মৃত্যু হয়েছে, ৫০০ জনের বেশি আহত হয়েছেন। ৫০০০-এর বেশি বাড়ি জ্বালিয়ে দেওয়া হয়েছে, ৬০,০০০-এর বেশি মানুষ ভিটে ছাড়া। এর থেকেই কেন্দ্রীয় এবং রাজ্য সরকারের ব্যর্থতা স্পষ্ট বলে দাবি করা হয়। সঙ্গে এও জানানো হয়, চূড়াচাঁদপুর, মৈরাং এবং ইম্ফলে কুকি এবং মেইতেই সম্প্রদায়ের ত্রাণ শিবিরগুলি তাঁরা পরিদর্শন করেছেন। সেখানকার বাসিন্দাদের কাছে থেকে এই হিংসার শিকারদের অভিজ্ঞতা শুনে তাঁদের হাড় হিম হয়ে গিয়েছে। শুধু তাই নয়, গত ৪ মে যে মহিলাদের নগ্ন করে হাঁটানো হয়েছিল, তাঁদের একজনের সঙ্গেও দেখা করেছেন ইন্ডিয়া জোটের প্রতিনিধিরা, রাজ্যপালের সঙ্গে দেখা করার পর এমনটাই এদিন এমনটাও জানিয়েছেন তৃণমূল কংগ্রেস সাংসদ সুস্মিতা দেব। সঙ্গে এও জানানো হয়েছে, ত্রাণ শিবিরগুলির অবস্থাও শোচনীয়। আর সেই কারণে ইন্ডিয়া জোটের তরফ থেকে দাবি করা হয়, অবিলম্বে শিশুদের এবং শিক্ষার্থীদের জন্য বিশেষ ব্যবস্থা নেওয়ার। পাশাপাশি ইন্টারনেটে নিষেধাজ্ঞার ফলে আরও বেশি গুজব রটছে বলে অভিযোগ করেন তাঁরা। এখানেই শেষ নয়, প্রধানমন্ত্রীর ‘নীরবতা’ নিয়ে এই স্মারকলিপিতেও প্রশ্ন তুলেছে বিরোধী জোট।

রাজ্যপালের সঙ্গে সাক্ষাতের পর, কংগ্রেস নেতা অধীররঞ্জন চৌধুরী জানান, রাজ্যপাল তাঁদের বক্তব্যকে সমর্থন জানিয়েছেন। পাশাপাশি, মণিপুরের হিংসার অবসানের জন্য তিনি বিরোধী দলগুলির প্রতিনিধিদের সমস্ত সম্প্রদায়ের নেতাদের সঙ্গে আলোচনা করারও পরামর্শ দিয়েছেন।

 

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

15 + 17 =