সৌরনীলের মৃত্যুর পর স্কুলের সামনে ট্র্যাফিক নজরদারিতে পুলিশ

সম্প্রতি বেহালার বড়িশার স্কুলের সামনে লরির চাকায় পিষ্ট হয়ে মৃত্যু হয় সৌরনীলের। অকালে এই মৃত্যু নাড়িয়ে দিয়ে গেছে প্রশাসনকে। বড়িশা উচ্চ বালিকা বিদ্যালয়ের সামনে ডায়মন্ড হারবার রোডের উপর শুক্রবার সকালে যেখানে দুর্ঘটনা ঘটে সেখানে কলকাতা ট্রাফিক পুলিশের তরফ থেকে শুরু হয়েছে  নজরদারির পালা। স্কুল পড়ুয়া ও তাদের অভিভাবকরা যাতে জেব্রা ক্রসিং দিয়ে নির্দিষ্ট ট্রাফিক নিয়ম মেনে রাস্তা পার করে, তা নিশ্চিত করতে চালানো হবে নজরদারি। পড়ুয়া ও অভিভাবকদের নিরাপত্তা সুনিশ্চিত করতেই এই ব্যবস্থা। এর পাশাপাশি কলকাতা পুলিশের তরফে ইতিমধ্যেই এই স্কুলটিকেও সতর্ক করা হয়েছে।

শুক্রবারের এই ঘটনার পর এদিকে এই দুর্ঘটনার পর স্কুলের অন্যান্য অভিভাবকরা ঘটনাস্থলে পৌঁছে অভিযোগ করেন, সেখানে কোনও পুলিশকর্মী ছিলেন না। তাঁদের আরও অভিযোগ ছিল, পুলিশের অনুপস্থিতির সুযোগ নিয়ে ঘাতক লরিটি সৌরনীলকে পিষে দিয়ে সেখান থেকে চম্পট দেয়। এরপরই পথচারীদের কথা মাথায় রেখে ওই স্ট্রেচে পাঁচ বুম ব্যারিয়র গেট বসানো হয়েছে। এমনকী ওই স্কুলের গেটের সামনেও একটি বুম ব্যারিয়র গেট বসানো হয়েছে। পথচারীদের চলাচল নিয়ন্ত্রণ করার জন্য কলকাতা পুলিশের তরফে এই পদক্ষেপ করাা হয়েছে বলে জানা গিয়েছে। কোনও ফাঁক গলে পথচারীরা যাতে রাস্তা পার করতে না পারে, সেই কারণে ওখানে বসানো হয়েছে গার্ডরেলও। কলকাতা পুলিশ সূত্রে জানা গিয়েছে, সোমবার থেকে শনিবার অবধি ওই স্কুলের সামনে যান নিয়ন্ত্রণের জন্য পুলিশ মোতায়েন করা থাকবে।

তবে রাস্তা পারাপারের সময় পথচারীদের একাংশেরও বেপরোয়া মনোভাব দেখা যাচ্ছে। চিংড়িঘাটা ক্রসিংয়ে পথচারী ও সাইকেল আরোহীদের চলাচলের জন্য ফুটওভার ব্রিজ ও ড্রপ গেট বসানো হয়েছে। রুবি মোড়, গড়িয়াহাট ক্রসিং বা রবীন্দ্র সদনেও এই ধরনের ড্রপ গেট বসানো হলেও পথচারীরা বেপরোয়াভাবে রাস্তা পার করছেন। এই প্রবণতা বন্ধ করতে সব ধরনের পদক্ষেপ করা হবে পুলিশের তরফে জানানো হয়েছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

nineteen − fifteen =