প্রতি বুথে কেন্দ্রীয় বাহিনীর জওয়ান রাখার পরিকল্পনা নির্বাচন কমিশনের

প্রতি বুথে কেন্দ্রীয় বাহিনীর জওয়ান রাখার পরিকল্পনা করে এগোচ্ছে রাজ্য নির্বাচন কমিশন। সঠিক সময়ে কেন্দ্রীয় বাহিনী বাংলার মাটিত পা রাখলে তা করা সম্ভব হবে বলে মনেও করছেন অনেকেই।

শনিবার এক দফাতেই পঞ্চায়েত ভোট হওয়ার কারণে, রাজ্যের সব বুথে কেন্দ্রীয় বাহিনী মোতায়েন করা যাবে কি না, তা নিয়ে ধোঁয়াশা তৈরি হয়েছিল। তবে বৃহস্পতিবার কলকাতা হাইকোর্টে প্রধান বিচারপতি টি এস শিবজ্ঞানমের ডিভিশন বেঞ্চেও এই সংক্রান্ত বিষয়ে একটি মামলা ওঠে। এরপরই কমিশন সূত্রে খবর, প্রত্যেক বুথে কেন্দ্রীয় বাহিনীর জওয়ান রাখার জন্যই পরিকল্পনা করছে কমিশন। রাজ্যে পঞ্চায়েত ভোটের জন্য মোট বুথ রয়েছে ৬১ হাজার ৬৩৬টি। সেক্ষেত্রে প্রতিটি বুথ পিছু একজন করে কেন্দ্রীয় বাহিনীর জওয়ান এবং একজন করে রাজ্য পুলিশের সশস্ত্র কর্মী মোতায়েন রাখার পরিকল্পনা নিয়েই এগোচ্ছে কমিশন। অন্তত এমনটাই রাজ্য নির্বাচন কমিশন সূত্রে খবর। এর পাশাপাশি বুথের বাইরে ভোটারদের লাইন নিয়ন্ত্রণের জন্য একজন করে লাঠিধারী সিভিক ভলান্টিয়ারকেও রাখার পরিকল্পনাও রাখছে কমিশন। যে বুথগুলি স্পর্শকাতর হিসেবে চিহ্নিত হচ্ছে, সেগুলির বাইরে আরও বেশি করে টহলদারি চালানোর বন্দোবস্তও করা হয়েছে রাজ্য নির্বাচন কমিশনের তরফ থেকে। এখনও পর্যন্ত যা ঠিক রয়েছে, তাতে বাংলার পঞ্চায়েত ভোট পরিচালনার জন্য মোতায়েন থাকছে ৬১ হাজার ৬৩৬ জন কেন্দ্রীয় বাহিনীর জওয়ান।

উল্লেখ্য, এদিন আদালতে রাজ্য নির্বাচন কমিশনের তরফে কেন্দ্রীয় বাহিনী মোতায়েন নিয়ে মূলত দুটি প্রস্তাব দেওয়া হয়েছিল। প্রথম প্রস্তাব, প্রতিটি বুথে একজন করে কেন্দ্রীয় বাহিনীর জওয়ান। আর দ্বিতীয় প্রস্তাব ছিল, কয়েকজন জওয়ানকে নিয়ে এক একটি দল গঠন করা। মোবাইল পেট্রোলিং টিম তৈরি হবে। সেই দল ছ’টি করে পোলিং স্টেশনের আইন-শৃঙ্খলা রক্ষার দায়িত্বে থাকবে। তবে হাইকোর্টের তরফ থেকে এই বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেওয়ার ব্যাপারে কমিশন ও বিএসএফ-এর আইজি-র উপরেও ছেড়ে দেয়। আদালত জানায়, কমিশন ও বিএসএফের আইজি আলোচনা করে এই বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেবে।

 

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

16 − thirteen =