বদলে গেল চন্দ্রযান-৩ এর অবতরণের সময়

নয়াদিল্লি: বদলে গেল চন্দ্রযান ৩-এর চাঁদে অবতরণের সময়। ২৩ অগাস্ট ল্যান্ডিং হলেও সময় একটু বদলালো। পৌনে ৬টা নয়, ল্যান্ডার বিক্রম চাঁদে নামবে সন্ধে ৬টা বেজে ৪ মিনিটে। রবিবার দুপুরে ইসরোর তরফে এই সময় বদলের বিষয়টি জানিয়ে একটি নয়া পোস্ট করা হয়। এদিন এক্স হ্যান্ডেলে অর্থাৎ টুইটারে ইসরোর তরফে উল্লেখ করে জানানো হয়, ‘চন্দ্রযান-৩ ইস অল সেট টু ল্যান্ড অন মুন। চাঁদে অবতরণের জন্য প্রস্তুত চন্দ্রযান-৩। আগামী ২৩ অগাস্ট, বুধবার সন্ধে ৬টা বেজে ৪ মিনিটে চাঁদে পা রাখবে ল্যান্ডার বিক্রম। আপনাদের সকলের শুভকামনার জন্য ধন্যবাদ।’

একইসঙ্গে এও জানানো হয়েছে, শনিবার মধ্যরাতেই চাঁদের কক্ষপথে শেষ ল্যাপে দ্বিতীয় ডি বুস্টিং প্রক্রিয়া সম্পন্ন হয় চন্দ্রযান ৩-এর। এখন চাঁদের একেবারেই কাছে অবস্থান করছে সে। আর মাত্র কয়েক মুহূর্ত। তারপরই চাঁদে নামবে চন্দ্রযান-৩। শনিবার মধ্যরাতে ইসরো অবশ্য জানিয়েছিল ২৩ অগাস্ট পৌনে ৬টায় চাঁদে নামবে সে। কিন্তু, রবিবার ফের বদলে দেওয়া হয় দিনক্ষণ।

শনিবার মধ্যরাতে ইসরোর শেষ ডি বুস্টিং সম্পন্ন হওয়ার পর চন্দ্রযান ৩ অবস্থান করছে ২৫ কিমি x ১৩৪ কিমি কক্ষপথে। প্রত্যাশা মোতাবেকই কাজ করছে ল্যান্ডার বিক্রম। ইসরোর-র তরফে জানানো হয়েছে, ল্যান্ডারটির শরীর স্বাস্থ্য ভালোই রয়েছে। চাঁদের কাছাকাছি পৌঁছনোর পর ল্যান্ডার বিক্রমের গতি একধাক্কায় অনেকটাই কমিয়ে দেওয়া হয়েছে। অবতরণের পর ল্যান্ডার বিক্রম থেকে বেরিয়ে আসবে রোভার প্রজ্ঞান এবং তা চাঁদে পরীক্ষা চালাবে। চাঁদের দক্ষিণ মেরুতে একাধিক বড় গর্ত রয়েছে। সেখানেই সফট ল্যান্ডিং হবে এই ল্যান্ডারের। যা নিয়ে অতি সতর্ক ইসরো। খুবই ধীর গতিতে পা ফেলা হচ্ছে চন্দ্রযান-৩ নিয়ে।

এদিকে ইসরোর চন্দ্রযানের সফল অবতরণের জন্য প্রয়োজন সূর্যের আলোর। সূর্যের আলো পাওয়ার পরেই সফট ল্যান্ড করবে ল্যান্ডার বিক্রম। কিন্তু, তাৎপর্যপূর্ণভাবে চাঁদে যখন ল্যান্ডার বিক্রম অবতরণ করবে তখন ভারতীয় সময় অনুযায়ী দেশের একাধিক অংশেই সূর্যাস্ত দেখা যাবে।

এদিকে, রবিবার দুপুরেই চাঁদে আছাড় খেয়ে ভেঙে পড়েছে রাশিয়ার ল্যান্ডার লুনা-২৫। রুশ মহাকাশ গবেষণা সংস্থা রসকসমসের এই মহাকাশযানটি শনিবার রাতেই এমারজেন্সি পরিস্থিতিতে পড়েছিল। যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন হয়ে গিয়েছিল লুনা ২৫-এর সঙ্গে। এরপর খবর মেলে সেটি চাঁদে ভেঙে পড়েছে। প্রসঙ্গত, এর আগে প্রথম ২০০৯ সালে চন্দ্রযান ১ মিশন করে ভারতের ইসরো। কিন্তু, তা ব্যর্থ হয়েছিল। এরপর ২০১৯ সালে চন্দ্রযান ২ মিশন অনুষ্ঠিত হয়েছিল। কিন্তু, চাঁদের খুব কাছাকাছি গিয়েও সেই মিশন ব্যর্থ হয়। চন্দ্রযান-২ ও চাঁদে আছাড় খেয়ে ভেঙে পড়েছিল।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

1 × 3 =